Bangladesh Railway Train Schedule – সকল ট্রেনের সময় সূচি

বাংলাদেশ রেলওয়ে দেশের পরিবহন ব্যবস্থার অন্যতম প্রধান মাধ্যম। বাংলাদেশ রেলওয়ে বিভিন্ন ধরণের সেবা দিয়ে থাকে। ২০০৩-৪ সালের জরীপ অনুযায়ী বাংলাদেশ রেলওয়ের দৈর্ঘ্য ৪,৪৪৩ কিলোমিটার এবং ২০১৬ সালের জরীপ অনুযায়ী স্টেশন ও জংশনের সংখ্যা ৪৫৮টি। বাংলাদেশ রেলওয়ের সারা বাংলাদেশে চলাচলকারী ট্রেন সংখ্যা ৩৪৭টি (আন্তঃনগর ৯০টি; মেইল এক্সপ্রেস ১২০টি; লোকাল ১৩৫টি)। এবং আন্তর্জাতিক রুটেও চলাচল করে ২ ট্রেন। বাংলাদেশ রেলওয়ে মূলত দুই ভাগে ভাগ করা যথা যমুনা নদীর পূর্ব ও পশ্চিম পাশ।

বাংলাদেশে বর্তমানে দুই ধরণের রেলপথ চালু আছে ব্রডগেজ এবং মিটারগেজ। মোট যাত্রীর প্রায় ৩৮.৫ শতাংশই আন্তঃনগর ট্রেনের মাধ্যমে যাত্রা করে এবং বাংলাদেশ রেলওয়ের মোট আয়ের প্রায় ৭৩.৩ শতাংশই আসে আন্তঃনগর রেল সেবা থেকে। এরই মধ্যে বাংলাদেশ রেলওয়ে ২০১২ সালের ২৯ মে ৬টি রেলস্টেশনে (ঢাকা, বিমানবন্দর, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, সিলেট, খুলনা) ই-টিকিটিং সিস্টেম সেবা চালু করেছে। যার মাধ্যমে অনলাইনে বা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে টিকেট বুকিং এবং ক্রয় করা সম্ভব।

বাংলাদেশ সরকারের অধীন ২টি রেল বিভাগ আছে: পশ্চিমাঞ্চল ও পূর্বাঞ্চল

বাংলাদেশ রেলওয়েতে তিন ধরণের শ্রেনী চালু রয়েছে: তাপানুকুল শ্রেণী, প্রথম শ্রেণী এবং দ্বিতীয় শ্রেনী।

তাপানুকুল শ্রেণীতে তিনটি উপশ্রেণী রয়েছে: তাপানুকুল বার্থ, তাপানুকুল সিট এবং তাপানুকুল চেয়ার।

প্রথম শ্রেণীতেও তিনটি উপশ্রেণী রয়েছে: প্রথম বার্থ, প্রথম সিট এবং প্রথম চেয়ার।

দ্বিতীয় শ্রেণীতেও তিনটি উপশ্রেণী রয়েছে: শোভন চেয়ার, শোভন এবং সুলভ।

আন্তঃনগর ট্রেনের তালিকা (মিটার গেজ এবং ডুয়েল গেজ)

Intercity Trains (Meter Gauge & Dual Gauge) Bangladesh Railway Train Schedule

[supsystic-tables id=11]

 

তথ্যসূত্রঃ বাংলাদেশ রেলওয়েউইকিপিডিয়া

  • Bangladesh Railway E Ticket- ই-টিকেটিং সিস্টেমে টিকেট ক্রয়ের নিয়মাবলী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here